তিরাশি বছর অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ এক মহিমান্বিত রজনী লাইলাতুল কদর

5 months ago admin 0

ভূমিকা

চলছে মুমিনের পূণ্যৈশ্বর্য অর্জনের বর্ণিল আয়োজন। চলছে সংকটে স্বাচ্ছন্দে নিরংকুশ আনুগত্যের সুনিবিড় অনুশীলন। আত্মচর্চার এ শুভ লগনে পরকালদর্শী মানব সমাজ দিনমান পানাহার-কামাচারের যথেচ্ছা ভোগের রাশ টেনে ধরে দেহজ বৃত্তিসমূহকে নিরুদ্দিপীত করে নচ্ছে। এ যেন আল্লাহ্‌ভীতি অর্জনের এক চমৎকার আয়োজন। সর্ব রকমের অমানিশা ও আবিলতা থেকে অন্তকরণকে মুক্ত করে আল্লাহ মুখী করার এক মহেন্দ্রক্ষণ। আত্মনুশীলনের এ আয়োজন জীবনের বাঁকে বাঁকে পুঞ্জিভূত গুনাহের আবিলতা থেকে চির মুক্তির অফুরন্ত অফার। অপার অসীম পূণ্য বিকিরণের এ সময়ের শ্রেষ্ঠ লগন হল শেষ দশকের দশ রজনী। লাইলাতুল কাদর বা ভাগ্য রজনির অদৃশ্য পরশে দীপ্তিময় হয়ে উঠেছে মহিমান্বিত পবিত্র রমাযানের শেষ দশকের পূর্ণ দশটি রজনি। ভাগ্য রজনির মধুর সন্ধানে মসজিদে মসজিদে বসেছে আল্লাহ্‌প্রেমী লাখো বনি আদমের মিলন মেলা। জাগতিক কোলাহল থেকে নির্লিপ্ত থেকে লুফে নিচ্ছে হাজার রজনীর পূন্য-সওয়াবের সমুজ্জ্বল সম্ভার। জীবনের বাঁক ঘুরিয়ে দিতে অনুসন্ধিৎসাময় এমন একটি দশকই খুলে দিতে পারে অপার সম্ভাবনার লৌহ কপাট।

কুরআন অবতরণের শ্রেষ্ঠ রজনী লাইলাতুল কদর

কদরের মহিমান্বিত এ রজনিই হল পবিত্র কুরআন অবতরণের শুভলগন। আল্লা তাআলা বলেন, রমাযান মাস; যাতে মানুষের দিশারী এবং সৎপথের স্পষ্ট নিদর্শন ও সত্যাসত্যের পার্থক্য নিরূপনকারীরূপে আলকুরআন অবতীর্ণ হয়েছে। সূরা বাকারা ১৮৫। অন্যত্র আল্লাহ তাআলা বলেন, নিশ্চয় আমি কুরআন অবতীর্ণ করেছি মহিমান্বিত রজনীতে। আর মহিমান্বিত রজনী সম্বন্ধে তুমি কী জান? মহিমান্বিত রজনী সহস্র মাস অপেক্ষা শ্রেষ্ঠ। সে রাত্রিতে ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হয় প্রত্যেক কাজে তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে। শান্তিই শান্তি সেই রজনী; ঊষার আবির্ভাব পর্যন্ত। সূরা কাদর।

ভাগ্য রজনী লাইলাতুল কদর

কদর রজনীতে আল্লাহ তাআলা মানুষের কর্মবিবরণী বণ্টন করেন।  সূরা দুখানে আল্লাহ তাআলা বলেন, হা-মীম। শপথ সুস্পষ্ট গ্রন্থের। আমি তো একে অবতীর্ণ করেছি বরকতময় রজনীতে; আমি তো সতর্ককারী। এ রজনীতে প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়। আমার আদেশক্রমে, আমি তো রাসূল প্রেরণ করে থাকি। তোমার প্রতিপালকের অনুগ্রহস্বরূপ; তিনি তো সর্বশ্রোতা, সর্বজ্ঞ। সূরা দুখান ১-৬। আয়াতে বর্ণিত বরকতময় রজনীই হল লাইলাতুল কদর। ইবনে আব্বাস রা. বলেন, তুমি মানুষকে দেখছ, সে হাট-বাজারে চলাচল করছে। অথচ তার নাম মৃতদের তালিকায় লিপিবদ্ধ হয়ে গেছে। অতঃপর তিনি পাঠ করলেন, انا انزلناه فى ليلة مباركة انا كنا منذرين. فيها يفرق كل امر حكيم  । অর্থ : আমি তো একে অবতীর্ণ করেছি বরকতময় রজনীতে; আমি তো সতর্ককারী। এ রজনীতে প্রত্যেক প্রজ্ঞাপূর্ণ বিষয় স্থিরীকৃত হয়। সূরা দুখান ২-৩, মুস্তাদরাকে হাকিম, হাদীস ৩৬৭৮

অফুরন্ত মার্জনা প্রাপ্তির রজনী লাইলাতুল কদর

লাইলাতুল কদর গুনাহ-পাপাচার থেকে মুক্তি লাভের মোক্ষম সময়। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদরে রাত্রি জেগে পূর্ণ বিশ্বাস এবং পূণ্য লাভের প্রত্যাশার সহিত নামাজ আদায় করবে তার অতীত জীবনের যাবতীয় পাপাচার ক্ষমা করে দেয়া হবে। সহীহ বুখারী, হাদীস ১৯০১।

লাইলাতুল কদর প্রাপ্তির সাধনায় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর পূর্ণ রমাযান ইতিকাফ পালন

আবু সালামা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি আবু সাঈদ খুদরী রা. এর নিকট গিয়ে বললাম, আমাদের নিয়ে হাদীস বর্ণনার উদ্দেশে খেজুর বাগানে যাবেন না? আবু সাঈদ খুদরী রা. খেজুর বাগানে গেলেন। তখন আমি বললাম, লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে আপনি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম থেকে যা কিছু শুনেছেন আমাদের বলুন। তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমাযানের প্রথম দশকে ই’তিকাফ করলেন। আমরাও তাঁর সাথে ই’তিকাফ করলাম। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর নিকট জিবরীল আ. এসে বললেন, আপনি যে বিষয় কামনা করছেন তা আপনার সম্মুখভাগে। ফলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম মধ্য দশকে ই’তিকাফ করলেন। আমরাও তাঁর সাথে ই’তিকাফ করলাম। পুনরায় জিবরীল আ. এসে বললেন, আপনি যে বিষয় কামনা করছেন তা আপনার সম্মুখভাগে। ফলে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম রমাযানের বিশতম দিনে সকাল বেলা সাহাবায়ে কেরামকে উদ্দেশ্য করে ভাষণ দিলেন। সে ভাষণে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, ‘যারা নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর সাথে ই’তিকাফ করেছে তারা যেন (ই’তিকাফ করার জন্য) আবার (মসজিদে) চলে আসে। কারণ আমাকে লাইলাতুল কদর দেখানো হয়েছে। তবে তার নির্দিষ্ট সময়টা আমাকে বিস্মৃতি করে দেয়া হয়েছে। তবে (এতটুকু বলতে পারি) সেটা শেষ দশকের বেজোড় রজনীতে হবে। আমি দেখলাম, যেন আমি কাঁদা মাটিতে সেজদা করছি।’ তখন মসজিদের ছাদ ছিল খর্জুর ডালার ছাউনি। (আমরা মসজিদে প্রবেশ করে) আকাশে কিছুই দেখতে পাই নি। হঠাৎ আকাশে এক খ- মেঘ দেখা গেল এবং বৃষ্টি হল। বৃষ্টিতে আমরা ভিজে গেলাম। এরপর রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের নিয়ে নামায পড়লেন। আমি রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর স্বপ্ন-বর্ণনার সত্যতা স্বরূপ তাঁর ললাট ও নাসিকার অগ্রভাগে কাঁদা-মাটির নিদর্শন দেখতে পেলাম। সহীহ বুখারী, হাদীস ৮১৩।

শেষ সপ্তকে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান

আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর কতিপয় সাহাবীকে স্বপ্নযোগে রমাযানের শেষ সপ্তকে লাইলাতুল কদর দেখানো হল। তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আমি তোমাদের স্বপ্ন শেষ সপ্তকে সমর্থিত হতে দেখেছি। যে ব্যক্তি লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান করতে চায় সে যেন রমাযানের শেষ সপ্তকে অনুসন্ধান করে। সহীহ বুখারী, হাদীস ২০১৫।

লাইলাতুল কদর অনির্দিষ্ট করণের মাঝেই মানবের কল্যাণ নিহিত

উবাদা ইবনে সামিত রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদেরকে লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে সংবাদ দিতে বের হলেন। ইত্যবসরে দুজন মুসলিম এ নিয়ে বিতর্কে জড়িয়ে গেল। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আমি তোমাদেরকে লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে সংবাদ দিতে বের হয়েছিলাম। কিন্তু অমুক আর অমুক এ নিয়ে বিতর্ক করেছে। ফলে তা উঠিয়ে নেয়া হয়েছে। হয়তো এটাই তোমাদের জন্য কল্যাণকর হবে। সুতরাং তোমরা নবম, সপ্তম এবং পঞ্চম রজনীতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান করো। সহীহ বুখারী, হাদীস ২০২৩।

লাইলাতুল কদর অনুসন্ধানে নববী প্রস্তুতি ও কর্মনীতির রূপরেখা

আয়িশা রা. থেকে বর্ণিত, যখন রমাযানের শেষ দশক চলে আসত তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আঁটসাট করে লুঙ্গি বাঁধতেন এবং এ দশকের রাত্রি জাগরণ করতেন এবং নিজ পরিবারের সদস্যদেরকেও জাগ্রত করতেন। সহীহ বুখারী, হাদীস ২০২৪।

অধিক সম্ভাবনাময় কদর রজনী

আবুল খায়র রা. হতে বর্ণিত, তিনি সুনাবিহী রা. কে জিজ্ঞেস করলেন, আপনি কখন হিজরত করেছেন? উত্তরে তিনি বললেন, আমরা যখন ইয়ামান থেকে হিজরত করে জুহফা এলাকায় পৌঁছি তখন একজন অশ্বারোহী আমাদের সামনে উপস্থিত হয়। আমরা তাঁকে সংবাদ জিজ্ঞেস করি। তখন সে বলল, আজ পাঁচ দিন হয় রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম কে সমাহিত করেছি। তখন আমি তাকে বললাম, তুমি কি লাইলাতুল কদর সম্বন্ধে কিছু শুনেছ? সে বলল, হ্যাঁ; রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর মুয়াজ্জিন বিলাল রা. আমাকে বলেছে, লাইলাতুল কদর রমাযানের শেষ দশকের সপ্তম রজনীতে হয়। সহীহ বুখারী, হাদীস ৪৪৭০।

আব্দুল্লাহ ইবনে মাসউদ রা. বলেন, যে ব্যক্তি সারা বছর রাত্রি জেগে নফল পড়বে সে লাইলাতুল কদর লাভ করবে। উবাই ইবনে কা’ব রা. বলেন, আল্লাহর শপথ! আমি অবশ্যই জানি, লাইলাতুল কদর কোন রজনী। লাইলাতুল কদর হল সেই রজনী যে রজনীতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের নামায পড়ার নির্দেশনা দিয়ে ছিলেন। সে রজনীটি হলা সাতাশ রমযানের শেষ রজনী। এর নিদর্শন হল, সেদিন ভোরে শুভ্র বর্ণের সূর্য উদিত হবে। তাতে কোনো কীরণ থাকবে না। সহীহ মুসলিম, হাদীস ১৮২১।

জাবের ইবনে সামুরা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, তোমরা সাতাশ রজনীতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান করো। মু’জামে তাবারানী সাগীর, হাদীস ২৮৫

সুনির্দিষ্ট লাইলাতুল কদর অনুসন্ধানে নববী নির্দেশনা

আব্দুল্লাহ ইবনে উমর রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, জনৈক ব্যক্তি স্বপ্নে দেখল, লাইলাতুল কদর হল, সাতাশ রজনী। তখন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, আমিও তেমাদের মত শেষ দশকে লাইলাতুল কদর দেখেছি। সুতরাং শেষ দশকের বেজোর রজনীতে তোমরা লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান করো। সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৮২০।

আবু সাঈদ খুদরী রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, তোমরা শেষ দশকের একুশ, তেইশ, পঁচিশ এবং সাতাশ রজনীতে লাইলাতুল কদর অনুসন্ধান করো। মুসনাদে আহমদ, হাদীস ১১৬৯৭

যে রজনীতে রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম লাইলাতুল কদর লাভ করেছিলেন

আব্দুল্লাহ ইবনে উনাইস রা. হতে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমাকে লাইলাতুল কদর দেখানো হয়েছে। কিন্তু পুনরায় তা বিস্মৃত করে দেয়া হয়েছে। সেদিন শেষ রজনীতে আমি আমাকে দেখেছি, কাঁদা মাটিতে সেজদা করছি। বর্ণনাকারী সাহাবী বলেন, তেইশ রজনীতে আমরা বৃষ্টিতে ভিজেছি। রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম আমাদের নিয়ে নামাজ পড়েছেন। নামাজ শেষে যখন বের হলেন, তখন তাঁর ললাট ও নাসিকায় কাঁদা-মাটির চিন্হ লেগে ছিল। সহীহ মুসলিম, হাদীস ২৮৩২।

লাইলাতুল কদরের পরিচয় লাভের নিদর্শনাবলী

উবাই ইবনে কাব রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, কদর রজনী শেষে কিরণ বিহীন প্রভাত সূর্য উদিত হবে; উপরে উঠার পূর্ব পর্যন্ত সূর্যটিকে একটি পাত্র সদৃশ মনে হবে। মুসনাদে আহমদ, হাদীস ২১২৩৫

ওয়াসিলা ইবনুল আসকা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, কদর রজনীর ঊষার আলো হবে নাতিশীতোষ্ণ। মু’জামে কাবীর তাবারানী, হাদীস ১৩৯

ফেরেশতাদের সমাবেশ রজনী লাইলাতুল কদর

আল্লাহ তাআলা বলেন, সে রাত্রিতে (লাইলাতুল কদরে) ফেরেশতাগণ ও রূহ অবতীর্ণ হয় প্রত্যেক কাজে তাদের প্রতিপালকের অনুমতিক্রমে। সূরা কদর ৪

আবু হুরাইরা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, লাইলাতুল কদর হল, তেইশ, একুশ এবং বিশতম রজনী। এ রাতে পৃথিবীতে প্রস্তর সংখ্যার চেয়েও বেশি পরিমাণ ফেরেশতাদের সমাবেশ ঘটে। মুসনাদে আহমদ, হাদীস ১০৭৪৫

ইবনে আব্বাস রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, লাইলাতুল কদর হল, প্রবল ঝড়ো বৃষ্টি, ঝড়ো বায়ু এবং সর্বপ্রকার অনিষ্টতা মুক্ত এক নাতিশীতোষ্ণ রজনী। এ রাতের প্রভাত সূর্য ক্ষীণ লালিমা ছড়িয়ে উদিত হবে। মুসনাদে আবু দাউদ তায়ালিসী, হাদীস ২৬৮০

লাইলাতুল কদর লাভ হয়েছে বলে উপলব্ধ হলে যে দোয়া পড়বে

আয়িশা রা. থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, আমি বললাম, আল্লাহর রাসূল! যদি আমি লাইলাতুল কদর লাভ করেছি বলে জানতে পারি তাহলে আমি সে রাতে কি পড়ব? রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বললেন, সে রাতে পড়বে   اللهم انك عفو تحب العفو فاعف عنى (হে আল্লাহ! আপনি তো ক্ষমাকারী; ক্ষমাকে পছন্দ করেন। সুতরাং আমাকে ক্ষমা করুন।) সুনানে তিরমিযী, হাদীস ৩৫৮০

স্বল্পায়ু পেয়েও এ উম্মত সহস্রায়ু প্রাপ্ত উম্মতের উপর প্রাধান্য লাভ করবে

আল্লাহ তাআলা বলেন, আমি তো নূহকে তার সম্প্রদায়েল নিকট প্রেরণ করেছিলাম। সে তাদের মাঝে সাড়ে নয় শত বছর অবস্থান করেছিল। অতঃপর প্লাবন তাদেরকে গ্রাস করে। কারণ তারা ছিল সীমালংঘনকারী। সূরা আনকাবুত ১৪।

আবু হুরাইরা র. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমার উম্মতের বয়স হল ষাট থেকে সত্তর অবধি। খুব স্বল্প সংখ্যক লোকই বয়সের এ সীমারেখাকে অতিক্রম করবে। সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস ২৯৮০

আবু হুরাইরা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলেন, আমরা শেষে আগমনকারী; তবে কিয়ামত দিবসে হব অগ্রগামী। সহীহ বুখারী, হাদীস ৩৪৮৬।

লাইলাতুল কদর হাজার মাসের চেয়েও শ্রেষ্ঠ। আর এক হাজার মাস তেরাশি বছরের চেয়ে অধিক সময়। যদি কোনো ব্যক্তি দশ বছরে দশটি লাইলাতুল কদর লাভ করে তবে তার এ দশটি রজনী ৮৩০ বছরের চেয়েও অধিক শ্রেষ্ঠ বলে পরিগণিত হবে। তেমনিভাবে যদি কোনো ব্যক্তি বিশ বছর লাইলাতুল কদর লাভ করে তবে সে ১৬৬০ বছরের চেয়েও অধিক সময়ের পূণ্য লাভ করতে সক্ষম হবে। এভাবেই শেষ যুগের মানব সমাজ দীর্ঘায়ূ লাভ না করেও বাড়তি সুবিধা ও বোনাস পেয়ে পূর্ববর্তী মানব সম্প্রদায় থেকে অগ্রগামিতা অর্জন করতে সক্ষম হবে। এটা একমাত্র এ উম্মতের বৈশিষ্ট্য।